A TRI-Language Channel Bengali | kokborok | English

#অযোধ্যা মামলায় ঐতিহাসিক রায় #

#অযোধ্যা মামলায় ঐতিহাসিক রায় #

অযোধ্যায় যে বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি নিয়ে এতদিনের মামলা সেই জমি দেওয়া হল রাম জন্মভূমি ন্যাসকে। অন্যদিকে, অযোধ্যার মধ্যেই মসজিদ তৈরির জন্য ৫ একর বিকল্প জমি দেওয়া হবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে। শনিবার এই রায় দিল সুপ্রিম কোর্টের ৫ সদস্যের বেঞ্চ।সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে অনুসারে ৩ মাসের মধ্যে একটি ট্রাস্ট গঠন করতে হবে কেন্দ্রকে। সেই ট্রাস্টের তত্বাবধানে তৈরি হবে মন্দির। প্রসঙ্গত, এদিন শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের জমির ওপর দাবি খারিজ করে দেয় আদালত। পাশাপাশি বিতর্কিত জমির ওপরে নির্মোহী আখড়ার দাবিও খারিজ করে দেয় আদালত।সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চের পক্ষ থেকে এদিন তার রায়ে বলা হয়, কারও বিশ্বাসের ভিত্তিতে মামলার নিস্পত্তি হতে পারে না। ঐতিহাসিক নথিকে প্রমাণিত হিন্দুদের বিশ্বাস অযোধ্যাতেই জন্মেছিলেন রাম। সীতা রসুই ও রাম চবুতরায় পুজো করতেন হিন্দুরা। ব্রিটিশ আমালের আগে থেকেই এই পুজো চলে আসছে।এদিকে, এই রায়ের পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়েছেন সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী জাফরিয়াব জিলানি। সুপ্রিম কোর্টে এই রায়দানের পর সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী জানান, এই রায়কে সম্মান জানাচ্ছি। কিন্তু সন্তুষ্ট নই।অন্যদিকে হিন্দু মহাসভার আইনজীবী বরুণ কুমার জানান, এটি ঐতিহাসিক রায়। এই রায়ের মাধ্যমে বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যের বার্তা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি জানান, বিকল্প জমির বিষয় নয়। কিন্তু প্রত্যাশিত রায় আসেনি। এই ট্রাস্ট তৈরির জন্য কেন্দ্রকে এগিয়ে আসার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে

  • অযোধ্যায় রামমন্দির তৈরির জন্য ৩ মাসের মধ্যে ট্রাস্ট তৈরি করতে হবে
  • মসজিদ বানানোর জন্য মুসলিম পক্ষকে ৫ একর বিকল্প জমি দিতে হবে 
  • মুসলিমদের জন্য বিকল্প জমির ব্যবস্থা হবে
  • জমির মালিকানার পক্ষে প্রমাণ দেখাতে পারেনি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড
  • যে কাঠামো ভেঙে বাবরি মসজিদ তৈরি হয়েছিল তা মসজিদ নয়।
  • বাবরি মসজিদ খালি জায়গায় ওপর তৈরি হয়নি
  • ধর্মবিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে আদালত রায় দিতে পারে না।
  • রাম যে অযোধ্যায় জন্মেছিলেন হিন্দুদের এই বিশ্বাসের ওপর প্রশ্ন তোলা যায় না।
  • জমির দখল নিয়ে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড যে দাবি করছে, তার যথাযথ প্রমাণ দিতে পারেনি।
  • ১৯৯২ সালে মসজিদ যে ভাঙা হয়েছে, তা আইনবিরুদ্ধ
  • অযোধ্যায় রামের জন্ম নিয়ে হিন্দুদের বিশ্বাস অনস্বীকার্য। 
  • ১৮৫৬-৫৭ সালের মধ্যে য নথি মিলেছে, হিন্দুদের পুজো করাতে কোনও বাধাদান দেওয়া হয়নি।

  • Link Shortener

  • http://headlinestripura.in/z/1536

Leave a Comment